দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সব সময়েই সামাজিক এবং মানব সম্পদ উন্নয়নের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের কাছে সমাজ কল্যাণ একটি গুরুত্বপূর্ণ খাত। এই খাতের অগ্রাধিকার হিসেবে সরকার গৃহকর্মীদের উন্নয়নের জন্য একটি নীতি প্রণয়ন করেছেন। ২০১০ সালের লেবার ফোর্স সার্ভে অনুযায়ী বাংলাদেশে ১৪ লক্ষ গৃহকর্মী রয়েছেন যাদের বয়স ১৫ বা তার বেশী, যারা গৃহ, মেস এবং ছাত্রাবাসে কাজ করেন। বাস্তবে সংখ্যাটি আরো বেশি।

এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ: অর্থনৈতিক সাফল্যের পাঁচ বছর

 

এটা সর্বজন স্বীকৃত যে বাংলাদেশ সামাজিক অগ্রগতি এবং মানব উন্নয়নের সূচকে ব্যাপক উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নিয়েছে। বাংলাদেশ অর্থনৈতিক পরিপ্রেক্ষিতে সাফল্যের ধারাতেই আছে।

সরকারী সেবায় আইসিটি: অল্পের মাঝেই ঢের বেশি

 

সম্প্রতি বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিসকে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেবার উদ্যোগের জন্য পুরস্কৃত হয়েছে। তথ্য সমাজের বিশ্ব সম্মেলন (WSIS) বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের প্রকল্প ‘অ্যাক্সেস টু ইনফরমেশন(A2I)’ কে চিহ্নিত করেছে সরকারি সেবাকে সকল পর্যায়ের জনগণের কাছে সহজলভ্য করার উপায় হিসেবে।

নারীর ক্ষমতায়নে আপোষহীন অবস্থান

 

২০০৯ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর, শেখ হাসিনার সরকার নারী উন্নয়নের জন্য নানাবিধ কর্মসূচী ও প্রকল্প হাতে নেয়া শুরু করেছে। নারীর উন্নয়ন এবং ক্ষমতায়ন সরকারের পূর্ণাঙ্গ দৃষ্টিভঙ্গীর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরে। বাংলাদেশ সরকারের ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা (২০১১-২০১৫), যেখানে জাতীয় মাঝারি পর্যায়ের উন্নয়ন পরিকল্পনায় বাংলাদেশকে ২০২১ সাল (ভিশন ২০২১ নামেও পরিচিত) নাগাদ একটি মধ্য আয়ের রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলায় অঙ্গীকারাবদ্ধ, নারীকে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করাকে নারীর ক্ষমতায়নের প্রধানতম চালিকাশক্তি হিসেবে বিবেচনায় নিয়েছে।

TOP