১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ ঢাকার রমনায় অবস্থিত রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) এক জনসভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতাকামী মানুষের প্রতি দিক-নির্দেশনামুলক একটি ভাষণ প্রধান করেন। মুলত এই ভাষণে তিনি পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালিদেরকে স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানান। কালজয়ী এই ভাষনে উদ্বুদ্ধ হয়েই বাংলার শোষিত-নিপীড়িত মানুষ পশ্চিম পাকিস্তানের জুলুম থেকে মুক্তির আশায় ঝাপিয়ে পড়ে সশস্ত্র সংগ্রামে। ১২টি ভাষায় ভাষণটি অনুবাদ করা হয়৷ নিউজউইক ম্যাগাজিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাজনীতির কবি হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ২০১৭ সালের ৩০ শে অক্টোবর ইউনেস্কো এই ভাষণকে ঐতিহাসিক দলিল হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। নিচে পুর্নাঙ্গ ভাষণটি তুলে ধরা হলো।

জেলহত্যাঃ বাঙালি জাতির ইতিহাসে আরেকটি কলঙ্কিত অধ্যায়

 

আজ সেই ভয়াল-বীভৎস ৩ নভেম্বর। বাঙালি জাতির ইতিহাসে আরেক কলঙ্কিত দিন রক্তক্ষরা জেলহত্যা দিবস। স্বাধীন বাংলাদেশের যে কয়টি দিন চিরকাল কালো দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে, তার একটি ৩ নভেম্বর। যে কয়েকটি ঘটনা বাংলাদেশকে কাঙ্ক্ষিত অর্জনের পথে বাধা তৈরি করেছে, তার মধ্যে অন্যতমটি ঘটেছিল ১৯৭৫ সালের এই দিনে।

এলএনজি যেভাবে জ্বালানীর দৃশ্যপট পাল্টে দিবে

 

বাংলাদেশের জ্বালানী সংকটের মূলে রয়েছে জ্বালানী ঘাটতি। এই ঘাটতি পূরণের জন্য বর্তমান সরকার ২০১৮ সালের মধ্যে জাতীয় গ্যাস গ্রিডে ৫০০ এমএমসিএফডি এলএনজি সরবরাহের লাইন সংস্কার করছে। জ্বালানী বিষয়ে জ্ঞান রাখেন এমন ব্যক্তি মাত্রই জানেন যে, কতটা প্রাকৃতিক গ্যাসের ঘাটতি ছিল গত এক দশক ধরে অথবা অর্থনীতির অগ্রযাত্রা কিভাবে থমকে গেছে গ্যাসের কারণে। উপকূলবর্তী এবং অফশোর এলকায় নতুন নতুন গ্যাস ক্ষেত্র আবিস্কার এবং উন্নয়নে সময়ক্ষেপণ করায় অর্থনীতির চাকাকে গতিশীল রাখতে এলএনজি আমদানির প্রয়োজনীয়তা তৈরী করেছে।

 

নির্বাচন কমিশনের নিকট একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রস্তাবসমূহ

 

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭২তম অধিবেশন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ

TOP