দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের অর্থনীতি সবচেয়ে সংহত: নিক্কেই এশিয়া

4826

Published on জুলাই 23, 2022
  • Details Image

বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় অর্থনীতি-বিষয়ক পত্রিকা নিক্কেই দক্ষিণ এশিয়ার বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে ব্যতিক্রম হিসেবে দেখছে। সম্প্রতি “Beyond Sri Lanka, economic cyclone bears down on South Asia”, শীর্ষক প্রতিবেদনে নিক্কেই শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, ভারত, নেপাল, মালদ্বীপ ও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি তুলে ধরেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে দক্ষিণ এশিয়া এশিয়ায় ক্রমবর্ধমান আর্থিক সংকটের ফলে মুদ্রাস্ফীতি, উচ্চ সুদের হার এবং মুদ্রার অবমূল্যায়ন ঘটতে যাচ্ছে, সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ একটি ব্যতিক্রম।

নিক্কেই জানিয়েছে, বাংলাদেশ সাফল্যের সঙ্গে ফরেক্স রিজার্ভের শক্ত অবস্থান ধরে রেখেছে। বৈদেশিক ঋণ পরিশোধে আরো টেকসই অবস্থানে গেছে দেশটি, যা সম্ভব হয়েছে দৃঢ় সিদ্ধান্তের কারণে। রিপোর্টে আরো বলা হচ্ছে, বাংলাদেশ  রাজস্ব আদায়ের সুষম গতি ধরে রাখতে পেরেছে কারণ দেশটি করোনার প্রথম দুই ধাক্কার মধ্যেও খুব কড়াকড়ি আরোপ করেনি। দেশটি তার মুদ্রার মানের পতন ঠেকাতে মুক্ত বাজারে  ব্যাপকভাবে হস্তক্ষেপ করা থেকে বিরত রয়েছে, যার ফলে যেকোন দুর্যোগের পরিস্থিতি মোকাবেলায় তহবিল সংরক্ষণ করছে, পাশাপাশি সতর্কভাবে রাজস্ব ঘাটতি এবং চলতি হিসাবের ভারসাম্য পরিচালনা  করে আসছে।

প্রতিবেদনে  বলা হয়েছে যে বৈদেশিক মুদ্রার কোষাগার সঙ্কুচিত হওয়া এবং বিশ্বব্যাপী মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির কারণে দক্ষিণ এশিয়ার বেশিরভাগ অংশ একই ধরনের ঝুঁকির সম্মুখীন হচ্ছে। মালদ্বীপ বাহ্যিক এবং সামষ্টিক অর্থনৈতিক ধাক্কাগুলির জন্য অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এবং জিডিপি অনুপাতের সাথে এর ঋণ শতভাগ ছাড়িয়ে গেছে।দুর্বল আর্থিক শৃঙ্খলা, দূরদর্শিতার অভাব এবং অপরিকল্পিত মেগা প্রকল্পের কারণে শ্রীলঙ্কা স্বাধীনতার পর থেকে সবচেয়ে খারাপ অর্থনৈতিক সঙ্কটের মুখোমুখি হচ্ছে। পাকিস্তানও শ্রীলঙ্কার পথে রয়েছে কারণ জানুয়ারিতে তার ঋণের জিডিপি অনুপাত ছিল ৩৫% এবং ভারত মহাসাগরের দ্বীপ দেশটির মতো একটি অস্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতি। বিশ্বের ষষ্ঠ বৃহত্তম অর্থনীতি ভারতও মুদ্রাস্ফীতি থেকে মুক্ত নয়। ২০২২ সালের এপ্রিলে  খুচরা মূল্য প্রায়  ৭.৮ শতাংশ বেড়েছে।  

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত