ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকীতে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের দোয়া ও মিলাদ মাহফিল

523

Published on মে 10, 2022
  • Details Image

বাংলাদেশের গর্বিত সন্তান, বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর জামাতা ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া’র ১৩তম মৃত্যুবার্ষিকী স্মরণে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের উদ্যোগে সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ডাবলু সরকার।

সভাপতির বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল বলেন, ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া অত্যন্ত নম্র, ভদ্র ও বিনয়ী ব্যক্তি ছিলেন। তিনি মেধাবীও ছিলেন। বিজ্ঞান চর্চায় অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন দেশ ও জাতির উন্নয়নে বিজ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে উন্নতি সাধনের উপায় বের করার চেষ্টা করেছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সবসময়ই মেধাবীদের যথাযথ মূল্যায়ন করতেন।

মোঃ ডাবলু সরকার বলেন, দেশ বরেণ্য পরমাণু বিজ্ঞানী বঙ্গবন্ধুর জামাতা ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া ছোটবেলা থেকেই অত্যন্ত মেধাবী, জ্ঞানপিপাসু ছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার পর তিনি পরিবারের অভিভাবকের ভূমিকা পালন করেছেন। দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির ক্ষেত্রে তাঁর অবদান অনস্বীকার্য। তিনি বাংলাদেশের ইতিহাসেরই একটি অংশ। রাজনীতিতে তিনি কখনই সরাসরি সম্পৃক্ত ছিলেন না। তাঁর কোন রাজনৈতিক অভিলাষও ছিলো না। রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত না থাকলেও বঙ্গবন্ধু কন্যাদ্বয়ের পাশে থেকে সবসময় রাজনৈতিক সুপরামর্শ দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতিকে গতিশীল করতে তিনি অসামান্য ভূমিকা রেখে গেছেন।

তিনি আরো বলেন, আজকে জাতির এই বরেণ্য সন্তান আজ আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তাঁর রেখে যাওয়া সৃষ্টিকর্ম আমাদের মাঝে রয়েছে। তিনি বেঁচে আছেন তাঁর সৃষ্টিকর্মের মাঝে, সমগ্র বাঙ্গালির হৃদয়ে। আমি তাঁর আত্মার চির শান্তি কামনা করি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের সহ-সভাপতি সৈয়দ শাহাদত হোসেন, রেজাউল ইসলাম বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আসলাম সরকার, দপ্তর সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম বুলবুল, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক মীর তৌফিক আলী ভাদু, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রবিউল আলম রবি, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ইয়াসমিন রেজা ফেন্সি, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মকিদুজ্জামান জুরাত, শ্রম সম্পাদক আব্দুস সোহেল, উপ-দপ্তর সম্পাদক পংকজ দে, উপ-প্রচার সম্পাদক সিদ্দিক আলম, সদস্য নফিকুল ইসলাম সেল্টু, হাবিবুর রহমান বাবু, আশরাফ উদ্দিন খান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ আব্দুল মান্নান, আতিকুর রহমান কালু, আব্দুস সালাম, মজিবুর রহমান, মজিবুর রহমান, জয়নাল আবেদীন চাঁদ, ইউনুস আলী, মোখলেশুর রহমান কচি, বে এম জুয়েল জামান, থানা আওয়ামী লীগের মধ্যে বোয়ালিয়া (পশ্চিম) থানার সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান রতন, বোয়ালিয়া (পূর্ব) থানার সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ, মতিহার থানার সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ইপফাৎ আরা কামাল, মালিহা জামান মালা, নগর শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ওয়ালী খান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শরীফ আলী মুনমুন, নগর যুবলীগ সভাপতি রমজান আলী, নগর কৃষক লীগ সভাপতি রহমতউল্লাহ সেলিম, সাধারণ সম্পাদক সাকের হোসেন বাবু, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাধারণ সম্পাদক জেডু সরকার, নগর মহিলা লীগ সভাপতি সালাম রেজা, সাধারণ সম্পাদক কানিজ ফাতেমা মিতু, নগর ছাত্রলীগ সভাপতি নূর মোহাম্মদ সিয়াম, সাধারণ সম্পাদক ডাঃ সিরাজুম মুবিন সবুজ, নগর তাঁতী লীগের আহ্বায়ক আনিসুর রহমান আনার, সদস্য সচিব মোকশেদ-উল-আলম সুমন প্রমুখ।

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত