বাজেট ২০২২-২৩ঃ অগ্রাধিকার পেয়েছে মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রন, কৃষি, উৎপাদন বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি

1160

Published on জুন 10, 2022
  • Details Image

করোনা-পরবর্তী অর্থনৈতিক অবস্থা ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব সামনে রেখে এবারের বাজেটকে অনেকেই বলছেন সম্ভাবনাময় ও চ্যালেঞ্জিং। গতকাল উত্থাপিত বাজেটটি এ পর্যন্ত বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট। কেননা, এটি বিগত অর্থবছরের তুলনায় ১২ দশমিক ৩২ শতাংশ বেশি। এছাড়া মূল বাজেটের তুলনায় ১৪ দশমিক ২৫ শতাংশ বেশি। ২০২১-২২ অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার ছিল ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে তা ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়।

বৃহস্পতিবার বিকেলে (৯ জুন) স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে জাতীয় সংসদে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী। এর আগে মন্ত্রিসভার অনুমোদনের পর প্রস্তাবে সই করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

এবারের বাজেটে রাজস্ব আয় প্রাক্কলন ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা, এনবিআরবহির্ভূত কর ১৮ হাজার কোটি টাকা, করছাড় প্রাপ্তি ৪৩ হাজার কোটি টাকা ও বৈদেশিক অনুদান ৩ হাজার ২৭১ কোটি টাকা।

বরাবরের মতো এবারও বাজেটকে ঘাটতি বাজেট হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। বাজেটে ঘাটতি ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। ঘাটতি মেটাতে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে আসবে ২ লাখ ৪১ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা, ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়া হবে ১ লাখ ৬ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকা, ব্যাংকবহির্ভূত উৎস থেকে ঋণ আসবে ৪০ হাজার ১ কোটি টাকা। এ ছাড়া সঞ্চয়পত্র থেকে আসবে ৩৫ হাজার কোটি টাকা ও বৈদেশিক ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ৯৫ হাজার ৪৫৮ কোটি টাকা ধরা হয়েছে।

বাজেটে এডিপিতে বরাদ্দ ধরা হয়েছে ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকা, প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ এবং মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশ।

শিক্ষা খাতে বরাদ্দ বেড়েছে

২০২২-২৩ অর্থবছরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। চলতি বছরের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৮১ হাজার ৪৪৯ কোটি টাকা। বিদায়ী অর্থবছরের তুলনায় চলতি অর্থবছর শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বেড়েছে ৯ হাজার ৪৯৫ কোটি টাকা।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জন্য এবার ৩১ হাজার ৭৬১ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল ২৬ হাজার ৩১৪ কোটি টাকা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের জন্য ৩৯ হাজার ৯৬১ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। চলতি অর্থবছরের জন্য করা হয়েছিল ৩৬ হাজার ৪৮৭ কোটি টাকা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের জন্য ৯ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। চলতি অর্থবছর বরাদ্দ করা হয়েছিল ৯ হাজার ১৫৩ কোটি টাকা।

বরাদ্দ বেড়েছে স্বাস্থ্য খাতেও

২০২২-২৩ অর্থবছরে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ এবং স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের জন্য বরাদ্দ বেড়েছে ৪ হাজার ১৩২ কোটি টাকা। গত অর্থবছর (২০২১-২২) এ খাতে বরাদ্দ ছিল ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা, যা এবার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৬ হাজার ৮৬৩ কোটি টাকায়।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘কোভিড-১৯ মোকাবিলায় গৃহীত কার্যক্রমসহ কোভিড-পরবর্তী সময়ে স্বাস্থ্যখাতের সার্বিক উন্নয়নের বিষয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বিবেচনায় নিয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ খাতে আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৩৬ হাজার ৮৬৩ কোটি টাকা প্রস্তাব করছি, যা গত ২০২১-২২ অর্থবছরে ৩২ হাজার ৭৩১ কোটি টাকা ছিল।’

কৃষিখাতে বরাদ্দ বেড়েছে ৯ হাজার কোটি টাকা

কৃষিক্ষেত্রে (কৃষি, খাদ্য এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ) সার্বিক উন্নয়নে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৩৩ হাজার ৬৯৮ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, যা ২০২১-২২ অর্থবছরে ২৪ হাজার ৩৪৫ কোটি টাকা ছিল। বরাদ্দ বেড়েছে ৯ হাজার ৩৫৩ কোটি টাকা।

বাজেট বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী বলেন, সবার জন্য নিরাপদ, পর্যাপ্ত ও মানসম্মত প্রাণিজ আমিষ নিশ্চিতকরণ সরকারের একটি অন্যতম লক্ষ্য। বাংলাদেশ মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। সরকারের মৎস্যবান্ধব কর্মসূচি বাস্তবায়ন এবং চাষি ও উদ্যোক্তা পর্যায়ে চাহিদাভিত্তিক ও লাগসই কারিগরি পরিষেবা দেয়ার ফলে ২০২০-২১ অর্থবছরে মৎস্য উৎপাদন হয়েছে ৪৬ দশমিক ২১ লাখ টন, যা ২০০৯-১০ সালের মোট উৎপাদনের চেয়ে ৫৯ দশমিক ৪০ শতাংশ বেশি।

জিডিপি ৭ দশমিক ৫ শতাংশ

প্রস্তাবিত বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৫ শতাংশ এবং ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে সাময়িক হিসাবে ৭ দশমিক ২৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে।

তবে গেল ১৩ এপ্রিল বিশ্বব্যাংক জানায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৪ শতাংশ হতে পারে এবং ২০২২-২৩ অর্থবছরে ৬ দশমিক ৯ শতাংশ হবে।

থাকছে সর্বজনীন পেনশন সুবিধা

২০২২-২৩ অর্থবছরে সরকারিভাবে সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালু হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

পেনশন প্রসঙ্গে মুস্তফা কামাল বলেন, ‘২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট বক্তৃতায় আমি সর্বজনীন পেনশন পদ্ধতি প্রবর্তনের ঘোষণা দিয়েছিলাম। আমি অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে ঘোষণা দিচ্ছি, সরকার আগামী অর্থবছর সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

ভাতার আওতা বৃদ্ধি

নতুন বাজেটে ভাতার আওতায় আরও ২ লাখ ৯ হাজার নারী-শিশুকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সামাজিক সুরক্ষা বলয়ে ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১২ লাখ ৫৪ হাজার নারী ও শিশু ভাতার আওতাভুক্ত হবে। ২০২১-২২ অর্থবছরের উপকারভোগীর সংখ্যা ছিল ১০ লাখ ৪৫ হাজার।

এ ব্যাপারে অর্থমন্ত্রী বলেন, সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির আওতাভুক্ত বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা ও প্রতিবন্ধী উপবৃত্তি কার্যক্রমে এবং দারিদ্র্য নিরসন কর্মসূচির আওতায় পল্লি ও শহর সমাজসেবা কার্যক্রম, অ্যাসিড দগ্ধ ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের পুনর্বাসনে শতকরা ৫০ ভাগ নারী এবং বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা দুস্থ মহিলা ভাতা এবং পল্লি মাতৃকেন্দ্র কার্যক্রমে শতকরা ১০০ ভাগ নারী অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

 

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত