অবরোধ-হরতাল আগুন-সন্ত্রাসই বিএনপি জামাতের গণতন্ত্র!

547

Published on ডিসেম্বর 12, 2023
  • Details Image

আশরাফ সিদ্দিকী বিটু:

গত ২৮ অক্টোবর থেকে বিএনপি সহিংসতা শুরু করেছে। সেদিন থেকে নিয়মিতভাবে বিএনপি-জামাত ও তাদের জোটের কিছু নামসর্বস্ব বামদল হরতাল-অবরোধ পালন করছে। এসব ভোঁতা অস্ত্র হরতাল-অবরোধে জনমানুষের কোনো সায় নেই। উল্টো জনগণ বিরক্ত, দিনদিন রাস্তায় যানবাহন বাড়ছে। অথচ বিএনপি এসব হরতাল-অবরোধ দিয়ে বাসে ট্রাকে যানবাহনে আগুন দিচ্ছে, সবজিবাহী ভ্যানে আগুন দিচ্ছে, রেলে আগুন দিচ্ছে- এসব আগুন সন্ত্রাস করে এখন বিএনপি-জামাত ও তাদের জোটরা আগামী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না। যদি নির্বাচনে অংশ না নেয়, তবে এসব আগুন সন্ত্রাসের মাধ্যমে তারা কী আদায় করবে? মানুষ পুড়িয়ে মারা বিএনপি-জামাতের চরিত্র, যা থেকে তারা বের হতে পারেনি। নিয়মিতভাবে রাতের আঁধারে যানবাহনে আগুন দিচ্ছে, চালক ও হেলপারদের দগ্ধ করছে। প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলা করেছে, নির্বাচন অফিসে ককটেল হামলা করেছে। পুলিশ হাসপাতালে হামলা, অগ্নিসন্ত্রাস ও ভাঙচুর করেছে।

২৮ অক্টোবর থেকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিএনপি-জামাতের সহিংসতার সার-সংক্ষেপ :
* বিএনপির সন্ত্রাসীদের হামলায় এক পুলিশ সদস্য মো. আমিরুল ইসলাম পারভেজ নিহত হন।
* বাস হেলপার নাইমকে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়।
* শ্রমিক লীগ নেতা জাহাঙ্গীর হোসেন নিহত হন।
* মোট ১৩ বাসচালক ও হেলপারকে আহত ও অগ্নিদগ্ধ করা হয়।
* পুলিশ বাহিনীর ১৩৫ জনকে আহত করা হয়।
* আনসার বাহিনীর ২৫ জনকে আহত করা হয়।
* ফায়ার সার্ভিসের ৩ জনকে আহত করা হয়।
* অবরোধকারীরা ৭৬ সাধারণ মানুষকে আহত করে। ১১ নভেম্বর রিকশাচালক আবদুল জব্বার (৪০) নামে এক যাত্রী দগ্ধ হন।
* ২৬ সাংবাদিককে আহত করা হয়।
* মোট ৫৪৯টি যানবাহন আগুন ও ভাঙচুর করা হয় (এর মধ্যে ৩৫৫টি যানবাহন পোড়ানো ও ১৯০টি ভাঙচুর করা হয়)।
* ৮টি অ্যাম্বুলেন্স ভাঙচুর ও আগুন দেওয়া হয়।
* ৯টি রেলে ভাঙচুর বা আগুন দেওয়া হয়।
* বিভিন্ন স্থানে আওয়ামী লীগের ৬টি দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর ও পোড়ানো হয়।
* দুটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগুন ও ভাঙচুর করা হয়।
* প্রায় ১০২ আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীকে আহত করা হয়।
* সারাদেশে ৩০৫টি ককটেল/বোমা হামলা করে বিএনপি- জামাতের সন্ত্রাসীরা।
* বিভিন্ন স্থানে প্রায় ৫০টি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় আগুন ও ভাঙচুর করে অবরোধকারী।

বিএনপি তাদের সন্ত্রাস-সহিংসতার রাজনীতি থেকে বের হতে পারেনি। যারা নির্বাচনকে বানচাল করবে, তাদের ওপর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা উচিত। এসব হরতাল অবরোধে দেশ ও জনগণের কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে- এর দায়ভার বিএনপি-জামাত ও তাদের মিত্রদের নিতেই হবে। ইতিহাস একদিন এসব আগুন সন্ত্রাস ও সহিংসতার বিচার করবেই।

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত