যার নামের উপর কখনো ধুলো জমতে দেয় না হাওয়াঃ এম. নজরুল ইসলাম

5380

Published on মার্চ 17, 2020
  • Details Image

তাঁর জাদুকরি সম্মোহনী শক্তিই বাঙালি জাতিকে উদ্বুদ্ধ করেছিল গুলির সামনে বুক পেতে দিতে। তিনি বরাভয় দিয়েছিলেন বলেই ভয় পায়নি জাতি। ইতিহাসের সেই বরপুত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, আমাদের জাতির জনক। আজো তিনি আমাদের প্রেরণার উৎস। আমাদের সত্ত্বায় মিশে আছেন তিনি। আজ ১৭ মার্চ এই মহান বাঙালির জন্মদিন। বাঙালির আত্মপরিচয়ের প্রতিক তিনি।

একজন মানুষ যে দেশ ও জাতির সমার্থক শব্দ হয়ে উঠতে পারেন, তার উৎকৃষ্ট উদাহরণ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখাতেই আমরা পাই, ‘…মানুষ হয়ে জš§লাভ করে আবার চাইবে কে, বিশ্রাম পাব কোথায়। মুক্তি পেতে হবে, মুক্তি দিতে হবে, এই-যে তার জীবনের একমাত্র লক্ষ্য’Ñএ কথাগুলো যে মহান বাঙালির জীবনে ধ্রুবসত্য হয়ে দেখা দিয়েছিল তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি তিনি। একটি দেশ, একটি জাতি, একটি পতাকাÑএই স্বপ্ন বুকে নিয়ে বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন।

১৯২০ সালের এই দিনে তৎকালীন গোপালগঞ্জ মহকুমার নিভৃত গ্রাম টুঙ্গিপাড়ায় এক সভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তাঁর জš§। গ্রামবাংলার সবুজ শ্যামল ও নিবিড় প্রকৃতির মধ্যে বেড়ে ওঠা শেখ মুজিব ছোটবেলা থেকেই ছিলেন রাজনীতি ও সমাজ সচেতনÑতাঁর অসমাপ্ত আত্মজীবনী ও বিশ্লেষকদের লেখায় এর প্রমাণ আমরা পাই। অন্যায়, অত্যাচারের বিরুদ্ধে ছিলেন সোচ্চার, প্রতিবাদী। টুঙ্গিপাড়ার খোকা নেতৃত্বের গুণে একদিন হয়ে ওঠেন বাঙালি জাতির প্রতীক। স্কুলজীবনেই অংশ নেন সক্রিয় রাজনীতিতে। কৈশোরেই কারাবাস শুরু। অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র থাকাকালে তৎকালীন ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে যোগদান করায় জীবনে প্রথম গ্রেফতার হয়েছিলেন। ম্যাট্রিক পাসের পর কলকাতায় ইসলামিয়া কলেজে অধ্যয়নকালে গণতন্ত্রের মানসপুত্র হিসেবে খ্যাত হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শেরেবাংলা একে ফজলুল হকসহ তৎকালীন প্রথম সারির রাজনৈতিক নেতৃত্বের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে তাঁর রাজনৈতিক জীবনের সূচনা।

বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধিকার আন্দোলনের নেতা। আমাদের দীর্ঘ সংগ্রামের ভেতর দিয়ে অর্জন এই স্বাধীন বাংলাদেশ। সেই সংগ্রামে অগ্রণী সংগঠক তিনি। তাঁর নামে পরিচালিত হয়েছে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ। এই মুক্তিযুদ্ধ তো একদিনের ব্যাপার নয়। হাজার বছরের পরাধীন জাতিকে একটি যুদ্ধের জন্য, একটি ভূখ-ের স্বাধীনতার জন্য, স্বতন্ত্র জাতিসত্তার জন্য তৈরি করতে হয়েছে। প্রয়োজন হয়েছে রাজনৈতিক প্রস্তুতির। জাতিকে তৈরি করতে হয়েছে রাজনৈতিক কর্মকা-ের ভেতর দিয়ে। বাঙালি জাতি বারবার তার স্বাতন্ত্র্যের পরিচয় দিয়েছে। আলাদা জাতিসত্তার পরিচয় দিতেও পিছপা হয়নি। যে বাঙালি স্বতন্ত্র পরিচয় তুলে ধরে নিজেদের মতো করে, সেই বাঙালিকে সংগঠিত রাখার কঠিন কাজটি বঙ্গবন্ধু করেন দক্ষ হাতে।

১৯৫৪ সালের নির্বাচনে হক-ভাসানী-সোহরাওয়ার্দীর নেতৃত্বে যুক্তফ্রন্ট মুসলিম লীগের ভরাডুবি ঘটায়। বঙ্গবন্ধু যুক্তফ্রন্ট সরকারের মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। কিন্তু পশ্চিম পাকিস্তানী শাসকরা বাঙালির এই বিজয়কে মেনে নিতে না পেরে ৯২-ক ধারা জারি করে এবং এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৫৮ সালে জেনারেল আইয়ুব খান মার্শাল ল জারি করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব তখন আইয়ুব খানের সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলন সংগঠনে আত্মনিয়োগ করেন।

১৯৬৬ সালের ৫ ও ৬ ফেব্রুয়ারি লাহোরে সম্মিলিত বিরোধী দলের একটি কনভেনশনে বঙ্গবন্ধু বাঙালির মুক্তিসনদ ৬ দফা ঘোষণা করেন। ওই ৬ দফা পশ্চিম পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীর ভিত কাঁপিয়ে দেয়। শেখ মুজিবের কণ্ঠকে স্তব্ধ করতে জেনারেল আইয়ুব খান একটার পর একটা মামলা দিয়ে তাঁকে গ্রেফতার করতে থাকেন। পূর্ব পাকিস্তানে ৬ দফার পক্ষে ব্যাপক গণজোয়ার সৃষ্টি হয়। সেই সময় রাজনীতির প্রধান আলোচিত বিষয় হয়ে ওঠে ৬ দফা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর সঙ্গীদের নামে আইয়ুব খান তখন আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা নামে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। বঙ্গবন্ধুকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করার জেনারেল আইয়ুবের এই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায় গোটা বাঙালি জাতি। ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে বাঙালি তাদের প্রিয় নেতা শেখ মুজিবকে ফাঁসির মঞ্চ থেকে মুক্ত করে আনে। বাঙালি জাতি তাঁকে বঙ্গবন্ধু উপাধিতে ভূষিত করে।
এরপর যে ইতিহাস রচিত হলো, সে ইতিহাস সবারই জানা। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে ঐতিহাসিক ভাষণের মধ্য দিয়ে বাঙালির ভবিষ্যৎ নির্ধারিত হওয়ার পর ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা। ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়। আমাদের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সংগঠক তিনি। মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণাদাতা। জাতির আত্মপরিচয় এনে দিয়েছিলেন বলেই জাতির পিতা তিনি।

এই বাংলার শ্যামল প্রান্তরে তিনি ঘুরে বেড়িয়েছেন। তাঁর কথায় আশ্চর্য এক জাদু ছিল। আকৃষ্ট করতে পারতেন মানুষকে। ভালবাসতেন দেশের মানুষকে। তাঁর চিন্তা ও চেতনা জুড়ে ছিল বাংলা ও বাঙালি। আজীবন বাঙালির কল্যাণ চিন্তা করেছেন তিনি। বাঙালিকে বিশ্বের একটি মর্যাদাসম্পন্ন জাতি হিসেবে দেখতে চেয়েছিলেন তিনি। জাতিকে তিনি সেই মর্যাদার স্থানে অধিষ্ঠিত করেছেন। দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের ভেতর দিয়ে তিনি বাঙালি জাতিকে একটি অভীষ্ট লক্ষ্যে স্থির করতে পেরেছিলেন।
স্বাধীনতার প্রধান সংগঠক তিনি। মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণাদাতা। জাতির আতœপরিচয় এনে দিয়েছিলেন বলেই জাতির পিতা। তাঁকে নিয়ে কবি শামসুর রাহমান লিখেছেন, ‘ধন্য সেই পুরুষ, যার নামের উপর রৌদ্র ঝরে/ চিরকাল গান হয়ে/ নেমে আসে শ্রাবণের বৃষ্টিধারা/ যার নামের উপর কখনো ধুলো জমতে দেয় না হাওয়া/ ধন্য সেই পুরুষ যার নামের উপর ঝরে/ মুক্তিযোদ্ধাদের জয়ধ্বনি।’

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি এই মহান পুরুষকে জাতি আজ স্মরণ করছে বিনম্র শ্রদ্ধায়।

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত