বঙ্গবন্ধুর হাতেই শুরু বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা

1187

Published on মার্চ 4, 2022
  • Details Image

হীরেন পণ্ডিত:

১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে লন্ডন হয়ে ৯ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু দেশের উদ্দেশে রওনা হলেন। ১০ জানুয়ারি সকালে বঙ্গবন্ধু দিল্লিতে সংক্ষিপ্ত যাত্রাবিরতি করে যাত্রা করেন ঢাকার উদ্দেশে। বিমানটি তেজগাঁও বিমানবন্দর স্পর্শ করে বিকেল ৩টায়। সেখান থেকে ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে লাখ লাখ বাঙালির ভালোবাসা আর স্নেহের পরশ ভেদ করে পৌঁছাতে বঙ্গবন্ধুর সময় লেগেছিল আড়াই ঘণ্টা। রেসকোর্সে লাখো জনতার মাঝ থেকে বঙ্গবন্ধু বাসায় পৌঁছেন সন্ধ্যা ৬টায়। এত দীর্ঘ পথযাত্রা, দীর্ঘ আনুষ্ঠানিকতা, জনসভা, আবেগ-উচ্ছ্বাস-কান্না বিনিময়ের পর ১১ জানুয়ারি থেকে বঙ্গবন্ধু সব ক্লান্তি-ভাবাবেগ উপেক্ষা করে এক মুহূর্ত বিলম্ব না করে দেশ পরিচালনা শুরু করেন। সেদিনই মন্ত্রিসভার সঙ্গে দু’দফা বৈঠক করেন এবং বৈঠকে সংবিধান প্রণয়নসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সংবিধানের শুরুতেই তিনি বলেন বাংলাদেশের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থার ভিত্তি হবে বাঙালি জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা। ১৯৭০ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে উল্লেখ করা ছিল দেশের অর্থনীতিতে সমাজতান্ত্রিক উন্নয়ন ও পরিবর্তন আনতে হবে। অর্থনীতিবিদরা এটিকে ব্যাখ্যা করেছিলেন দারিদ্র্য বিমোচন ও বৈষম্য দূরীকরণ এবং পরিকল্পিত উন্নয়ন ব্যবস্থার মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিকে উন্নয়নের পথে নিয়ে যাওয়া। এ ভিত্তিতেই তদানীন্তন অর্থমন্ত্রী তাজউদ্দীনের ১৯৭২-৭৩ সালের বাজেট প্রণীত হয়েছিল, যেটিতে সংবিধানের মূলনীতিগুলোর প্রতিফলন ছিল। বঙ্গবন্ধুর অর্থনৈতিক দর্শনের কিছু মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্য ছিল, স্বনির্ভরতা অর্জন, দেশের অভ্যন্তরীণ সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার, বৈদেশিক সহায়তা গ্রহণ ও ব্যবহার, যা হতে হবে শর্তবিহীন এবং ক্রমে এ নির্ভরতার অংশ কমিয়ে আনতে হবে। বেসরকারি খাতকেও উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও শিল্পায়নে সম্পৃক্ত করা। ১৯৭২ সালে বেসরকারি খাতে বিনিয়োগের উচ্চসীমা নির্ধারণ করা হয়েছিল ২৫ লাখ টাকা, যা ১৯৭৪ সালে ৩ কোটিতে বর্ধিত করা হয়।

সংবিধানে বঙ্গবন্ধুর দেশের সার্বিক উন্নয়নের যে চিন্তা ও নির্দেশনা ছিল, সেগুলো বর্ণিত হয়েছে সংবিধানের দ্বিতীয় ভাগের অনুচ্ছেদগুলোতে। স্থানীয় শাসনসংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর উন্নয়ন, জাতীয় জীবনে নারীদের অংশগ্রহণ। ১২ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু অস্থায়ী সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং নতুন মন্ত্রিপরিষদ গঠন করেন। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের পর থেকে বস্তুত তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে সরকারি-বেসরকারি সব সংস্থাসহ সারা দেশ বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে চলতে থাকে এবং সেনাবাহিনীর বাঙালি অংশ বঙ্গবন্ধুর নির্দেশের অপেক্ষায় থাকে।

যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে পুনর্গঠন এবং সফলভাবে অর্থনৈতিক ও অন্যান্য খাতের বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করেন। সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে দেখলেন গুদামে খাদ্য নেই, মাঠে ফসল নেই, কেন্দ্রীয় ব্যাংকে রিজার্ভ শূন্য। বস্তুত কোনো ব্যাংকের কার্যকারিতা নেই। সড়ক ও রেলপথ বিচ্ছিন্ন, নৌ ও সমুদ্রবন্দরগুলো বিধ্বস্ত। স্কুল-কলেজগুলো ছিল পরিত্যক্ত সেনাছাউনি। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী পরাজয় নিশ্চিত জেনে সম্ভাব্য সবকিছু ধ্বংস করে দিয়েছিল।

বঙ্গবন্ধু গুরুত্ব দিয়েছেন জোটনিরপেক্ষ অবস্থান বজায় রেখে দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিশ্বের বেশির ভাগ দেশের স্বীকৃতি আদায় এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থার সদস্যপদ লাভ করার। উদ্দেশ্য ছিল আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশকে দাঁড় করানো। তাঁর শাসনামলে মাত্র সাড়ে তিন বছর সময়ে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশকে ১২১ টি দেশের স্বীকৃতি এবং জাতিসংঘসহ ৩৬টি আন্তর্জাতিক সংস্থার সদস্যপদ লাভ করিয়েছেন।

মুক্তিযুদ্ধে পরিবহন ব্যবস্থা প্রায় সম্পূর্ণভাবেই বিধ্বস্ত হয়ে পড়ে। এর ফলে মুক্তিযুদ্ধ-উত্তর অর্থনীতি খাদ্যশস্য, শিল্পে ব্যবহৃত কাঁচামাল, কৃষিজাত দ্রব্য এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আমদানি ও বিতরণ প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। এই পরিস্থিতিতে পুনর্গঠন কাজকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা, নৌপরিবহন এবং অন্যান্য ক্ষতিপূরণের উদ্যোগ নেন এবং বেসামরিক বিমান চলাচলের ওপর গুরুত্ব দেন। বিদ্যুৎ ব্যবস্থাও ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ছিলো। দ্রুত সময়ের মধ্যে ট্রান্সমিশন ও বিতরণ লাইন নির্মাণের মাধ্যমে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা করা হয়।

খাদ্য উৎপাদনে সবচেয়ে বেশি ভর্তুকি দিয়ে চাষাবাদে যান্ত্রিক পদ্ধতি প্রবর্তন করেন। কৃষকের মাঝে সার, ওষুধপত্র ও উন্নতমানের বীজ প্রদান করেন। শিক্ষিত ও দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করার পরিকল্পনা করে জাতীয় শিক্ষা কমিশন গঠন করেন। স্কুল ও কলেজগুলোকে জাতীয়করণ করে উচ্চশিক্ষার জন্য মঞ্জুরি কমিশন গঠন করেন। এই পুনর্গঠনে অনেক বন্ধুরাষ্ট্র সাহায্য দিয়েছিলো, যেগুলো পরিশোধ করার প্রয়োজন ছিল না। ভারত, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, যুবসমাজকে দেশপ্রেমের আদর্শে উদ্দীপ্ত করতে তিনি উপদেশ-নির্দেশ দিতেন।

১৯৭৩ সালে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বলেন, ‘বাংলার মানুষ, বিশেষ করে তরুণ সম্প্রদায়কে আমাদের ইতিহাস জানতে হবে। বাংলার যে ছেলে তার অতীত বংশধরদের ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে পারে না, সে ছেলে সত্যিকারের বাঙালি হতে পারে না।’ তিনি এ বিষয়ে বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলেন। কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার গুরুত্ব বর্তমানেও অধিক। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব উপযোগী দক্ষ যুবশক্তি গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও বঙ্গবন্ধুর যুবভাবনা ও চিন্তা-চেতনা প্রাসঙ্গিক। এখন বর্তমান চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য প্রয়োজন প্রযুক্তি, রোবটিকস, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও আইওটি জানা নতুন প্রজন্ম ও দক্ষ যুবসমাজ গড়ে তোলা। তবে এ ক্ষেত্রে কৃত্রিম চেতনা ও কৃত্রিম মনোভাবের প্রজন্ম যেন গড়ে না ওঠে, সে ব্যাপারে অধিক সচেতনতা প্রয়োজন। বঙ্গবন্ধুর ভাবনার খাঁটি, দক্ষ, সৎ ও বাঙালি চেতনায় উদ্বুদ্ধ দেশপ্রেমী যুবসমাজই হলো আমাদের সম্পদ, সোনার বাংলা গড়ার দক্ষ কারিগর।

বঙ্গবন্ধুর সকল আন্দোলন-সংগ্রামে এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে গণমাধ্যমের ভূমিকা ছিল অসীম। ভাষা আন্দোলন, ছয় দফা, দেশের জনগণের বেঁচে থাকার দাবি হিসেবে উপস্থাপনে গণমাধ্যমের অসামান্য অবদান। মুক্তিযুদ্ধের সময় সংবাদপত্র এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়াকে ‘গণমাধ্যম বলে আখ্যায়িত করেন, শুধু সংবাদ মাধ্যম নয়। বঙ্গবন্ধু সারাজীবন মত প্রকাশের স্বাধীনতার কথা বলেছেন। গণমাধ্যমের গুরুত্ব সম্পর্কে কথা বলার সময় বঙ্গবন্ধু তার স্মৃতি উল্লেখ করেন যে, “আমার বাবা বাড়িতে সংবাদপত্র রাখতেন; আনন্দবাজার, বসুমতী, আজাদ, মাসিক মোহাম্মদী এবং সওগাত”।

বঙ্গবন্ধু ১৯৪৮ সালের জানুয়ারিতে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর আর্থিক সহায়তায় তারা দৈনিক ইত্তেহাদ প্রকাশ করেন। এই পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন আবুল মনসুর আহমেদ। ম্যাগাজিনটি ওই সময় সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল আধুনিক ম্যাগাজিন হিসেবে সম্পূর্ণ নতুন রূপে। বঙ্গবন্ধু নিজেই অক্লান্ত পরিশ্রম করে পত্রিকাটি বাজারজাত করেন। তিনি পত্রিকার ব্যবস্থাপনায় একজন দায়িত্বশীল পরামর্শকও ছিলেন।

১৯৪৯ সালে আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠিত হলে সাপ্তাহিক ইত্তেফাক পাত্রিকার মুখপত্র হিসেবে প্রকাশিত হয়। মওলানা ভাসানী সম্পাদক ছিলেন, ইয়ার মোহাম্মদ খান প্রকাশক ছিলেন, তফাজ্জল হোসেন (মানিক মিয়া) পত্রিকা পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী পত্রিকার অর্থায়ন করতেন। দলীয় কর্মীদের মাঝেও বঙ্গবন্ধু এই পত্রিকার বিক্রির ব্যবস্থা করেন।

সংবাদপত্রগুলি সংবাদ, কলাম এবং সম্পাদকীয়তে, শোষণ, নির্যাতন এবং বৈষম্যের সঠিক চিত্র তুলে ধরেছিল। পরবর্তীতে ১৯৭০ সালের নির্বাচন এবং একাত্তরের অসহযোগ আন্দোলনের সময় দৈনিকগুলোও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করে। তারা বঙ্গবন্ধুর সকল সিদ্ধান্ত, নির্দেশনা, বিবৃতি এবং বক্তৃতা প্রথম পৃষ্ঠায় ছাপিয়েছে। সংবাদপত্র জনগণকে অনুপ্রাণিত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে, তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বকে পূর্ণ সমর্থন দিয়েছে। অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে গণমাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব গ্রহণযোগ্য ছিল। ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকে সংবাদপত্রগুলি ‘সেই মহান মানুষ আসে’ বলে বর্ণনা করে। বঙ্গবন্ধু প্রথম সাংবাদিকদের বাক স্বাধীনতা রক্ষা করেন। গণমাধ্যমকে শক্তিশালী করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন এবং সাংবাদিকদের বেতন ভাতা, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এবং গণমাধ্যমের জাতীয় স্বীকৃতির ব্যবস্থা করেন।

বঙ্গবন্ধু জানতেন ষড়যন্ত্র হচ্ছে। কিন্তু দেশের মানুষ তাঁকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে, এটা তিনি কল্পনাও করতে পারতেন না। জ্যামাইকায় কমনওয়েলথ সম্মেলনে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী সাক্ষাতে বললেন, ‘শেখ সাহেব, আমাদের কাছে ভীতিকর খবর আছে। আপনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। উত্তরে বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘ম্যাডাম ইন্দিরা, চিন্তা করবেন না। কোন বাঙালি আমাকে স্পর্শ করবে না। যদি তারা করে, আমি গলায় চাদর জড়িয়ে গ্রামে ফিরে যাব। শেখ মুজিব ক্ষমতার অধিকারী নন।’

খুনিদের পরিকল্পনার বিষয়গুলো বঙ্গবন্ধু কখনো বিশ্বাস করেননি। কিছু শুভাকাঙ্ক্ষী তাঁকে সতর্ক করার চেষ্টা করেন, কিন্তু তিনি তাদের সতর্কবাণীগুলোকে এড়িয়ে গিয়ে বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ কখনোই তাঁর কোন ক্ষতি করবে না’। জীবনের জন্য হুমকি আছে তা জানা সত্তে¡ও বঙ্গবন্ধু কখনো বিষয়টির প্রতি মনোযোগ ও গুরুত্ব কোনটাই দেননি।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে, অসহিষ্ণু রাজনৈতিক পরিবেশ বঙ্গবন্ধুর হত্যার পথ প্রশস্ত করেছিলো। সদ্য স্বাধীন দেশে বিরোধী রাজনৈতিক শক্তির উত্থান, একাত্তরের পরাজিত বাহিনীর গোপন কর্মকাণ্ড, অন্যদিকে চরমপন্থী বাম দলের উত্থানের কারণে মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে পড়ছিলো। ষড়যন্ত্রকারীরা এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করে। খুনিরা তাদের লক্ষ্য পূরণ করে। সফল মিশন শেষে বাংলাদেশকে পেছনের দিকে নিয়ে যাওয়া শুরু হয়।

বিশ্লেষকদের মতে, এটা মোটেও সহজ কাজ নয় যে, কিছু সংখ্যক সেনা সদস্য জাতির পিতাকে তাদের পরিবারসহ নিরস্ত্র মানুষদের ট্যাঙ্ক নিয়ে গিয়ে সপরিবারে হত্যা করবে পাশাপাশি রেডিও এবং টেলিভিশনে গিয়ে জাতির কাছে বঙ্গবন্ধু হত্যার খবর দেবে। গবেষকদের মতে, মুজিব হত্যার দু’টি মাত্রা রয়েছে। একটি অভ্যন্তরীণ রাজনীতি এবং অন্যটি আন্তর্জাতিক। বিচারে এর কোনোটাই আসেনি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর নৃশংসভাবে হত্যা পর তাঁর পরিবারের সদস্যদেরও হত্যা করা হয় যাতে কেউ আওয়ামী লীগের হাল ধরতে না পারে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে হত্যার জন্য, দলের চার জাতীয় নেতাকেও ৩রা নভেম্বর কারাগারে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। প্রবীণ নেতাদের কেউ কেউ বঙ্গবন্ধুর রক্তের সিঁড়ি বেয়ে খন্দকার মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দেন।

১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে সাহসী বাঙালিরা নিজেদেরকে একটি বিশ্বাসঘাতক, কাপুরুষ-আত্মঘাতী জাতি হিসেবে বিশ্বের কাছে পরিচয় করিয়ে দেয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতির চেতনার নাম, একটি স্বপ্নের নাম, সৃষ্টির ইতিহাসের নাম, আকাক্সক্ষার নাম, সংগ্রামের নাম এবং সাফল্যের নাম। তিনি ইতিহাসের মহানায়ক। বঙ্গবন্ধু চিরকাল বাঙালির হৃদয়ে অমর হয়ে আছেন এবং থাকবেন।

১৯৭৫ এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পর দেশের উন্নয়নের গতি সাময়িক থেমে যায়। সেই দুঃসময়ে শেখ হাসিনা চরম দুঃসময়ে ঐক্যের প্রতীক হিসেবে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী হিসেবে হাল ধরেছেন। গণতন্ত্রের সংগ্রামে দীর্ঘ পথ হেঁটেছেন। বার বার মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছেন। আওয়ামী লীগকে জনপ্রিয় দল হিসেবে ২১ বছর পর ক্ষমতায় এনেছেন ১৯৯৬ সালে এবং গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার জন্য নিরলস কাজ করছেন।

স্বাধীন দেশ পেয়েছি বলেই আমরা স্বাধীনভাবে সব কিছু চিন্তা করতে পারি। সমাজ ও অর্থনীতির বিভিন্ন সূচকে আমাদের সাফল্য বিশ্ববাসীর বিস্ময়মুগ্ধ মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে তা বঙ্গবন্ধুর কল্যাণেই সম্ভব হয়েছে। বলা বাহুল্য, যে এ সবই সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার কল্যাণে। স্বাধীনতার মহান স্থপতি হিসেবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু যে সম্ভাবনার অসীম সেই দিগন্ত উন্মোচন করেছেন তাই নয়, একই সাথে হতাশাক্লিষ্ট জাতিকে উদ্বুদ্ধ করেছেন ভয়কে জয় করার জন্য, মৃত্যুঞ্জয়ী মন্ত্রেও দিক্ষিত করেছেন পুরো জাতিকে।

গত এক যুগে দেশের অনেক উন্নতি হয়েছে। বাংলাদেশ আজ দক্ষিণ এশিয়া তো বটেই, বিশ্বের অন্যতম সমৃদ্ধশালী রাষ্ট্র। নিন্দুকদের তলাবিহীন ঝুড়ি’ মন্তব্যকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ৫০ বছরেই উন্নয়নশীল দেশের কাতারে শামিল হতে যাচ্ছে। যেখানে এখন মাথাপিছু আয় ২৫৫৪ ডলার। এই মুহূর্তে সামাজিক ও অর্থনীতির বেশকিছু সূচকে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল’ বাংলাদেশ।

দারিদ্র্য বিমোচন, জিডিপি প্রবৃদ্ধি, খাদ্য উৎপাদন, বিদ্যুৎ উৎপাদন, নারীর ক্ষমতায়ন, গড় আয়ু বৃদ্ধি, শিক্ষার হার বৃদ্ধি, উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ, মধ্যম আয়ের দেশসহ, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ, মেট্রোরেলসহ ভৌত কাঠামো উন্নয়নে বাংলাদেশের বিশেষ অর্জন রয়েছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে মহাকাশ জয় করেছে লাল-সবুজের সোনার বাংলা। ডিজিটাল বাংলাদেশের অংশ হিসাবে ইন্টারনেট সেবা পৌঁছেছে প্রত্যন্ত গ্রামে। হাতে হাতে মোবাইল ফোন, যা যোগাযোগমাধ্যমে যুগান্তকারী পরিবর্তন নিয়ে এসেছে। ইতোমধ্যে চালু হয়েছে সর্বাধুনিক ফাইভজি টেকনোলজি। ২০৩০ সালে এসডিজি অর্জন এবং ২০৪১ উন্নত দেশের স্বপ্ন বাস্তবায়নের পথে এক দুর্বার গতিতে চলছে দেশ।

লেখক : প্রাবন্ধিক ও গবেষক

 

Live TV

আপনার জন্য প্রস্তাবিত